কবরে কার সঙ্গে কেমন আচরণ করা হবে

কবরে কার সঙ্গে কেমন আচরণ করা হবে

চ্যানেল নিউজ, ঢাকা : বারা বিন আজিব (রা.) বর্ণনা করেছেন, আমরা রাসুল (সা.)-এর সঙ্গে এক আনসারি ব্যক্তির জানাজায় উপস্থিত হই। কবর পর্যন্ত পৌঁছলে তখনো দাফন করা হয়নি। রাসুল (সা.) বসলে আমরা তাঁর চারপাশে এমনভাবে বসি, যেন আমাদের মাথার ওপর পাখি বসা ছিল। তাঁর হাতে একটি কাষ্ঠখণ্ড ছিল।

তিনি তা দিয়ে মাটি খুঁড়ছিলেন। অতঃপর মাথা তুলে তিনি বলেন, ‘তোমরা আল্লাহর কাছে কবরের আজাব থেকে প্রতিদান প্রার্থনা কোরো।’ এ কথা তিনি দুই বা তিনবার বলেন। অতঃপর তিনি বলেন, মৃত ব্যক্তি তার সঙ্গে আসা ব্যক্তিদের ফেরার সময় তাদের জুতার আওয়াজ শুনতে পায়।

তার কাছে দুজন ফেরেশতা এসে তাকে বসিয়ে নেয়। তারা মৃত ব্যক্তিকে জিজ্ঞাসা করবে, হে অমুক, তোমার রব কে? সে জবাব দেবে, আমার রব আল্লাহ। তারা জিজ্ঞাসা করে, তোমার দ্বিন কী? সে উত্তর দেবে, আমার দ্বিন ইসলাম। অতঃপর তারা পুনরায় জিজ্ঞাসা করে, এই ব্যক্তি কে যাকে তোমাদের কাছে পাঠানো হয়েছিল? সে বলবে, তিনি রাসুল (সা.)।
তারা জিজ্ঞাসা করে, তুমি কিভাবে তা জানলে? সে বলবে, আমি আল্লাহর কিতাব পড়েছি, তাতে ঈমান এনেছি এবং তা সত্যায়ন করেছি। মহান আল্লাহ বলেন, ‘আল্লাহ তাদের সুপ্রতিষ্ঠিত করেন যারা শাশ্বত বাণীকে বিশ্বাস করে।’ (সুরা ইবরাহিম, আয়াত : ২৭)

অতঃপর আকাশ থেকে একজন ঘোষণা দেয়, আমার বান্দা সত্য বলেছে। তোমরা তার জন্য জান্নাতকে সুপ্রশস্ত করো। তার জন্য জান্নাতের দরজা উন্মুক্ত করো।

তাকে জান্নাতের পোশাক পরিধান করাও। অতঃপর তার কাছে জান্নাতের সুঘ্রাণ আসতে থাকে। এবং তার জন্য দৃষ্টিসীমা পর্যন্ত প্রশস্ত করা হয়।

অন্যদিকে কাফিরের মৃত্যুর বিবরণ বর্ণিত হয়েছে। তার দেহে রুহ ফিরিয়ে দেওয়া হবে। তার কাছে দুজন ফেরেশতা এসে তাকে বসিয়ে জিজ্ঞাসা করবে, তোমার রব কে? সে বলবে, হায় হায়! আমি জানি না। তারা জিজ্ঞাসা করবে, তোমার দ্বিন কী? সে বলবে, আমি তো জানি না। তারা জিজ্ঞাসা করবে, তোমার কাছে যাকে পাঠানো হয়েছে তিনি কে ছিলেন? সে বলবে, হায় হায়! আমি জানি না।

অতঃপর আকাশ থেকে একজন ঘোষণা দেবে, এই ব্যক্তি মিথ্যা বলেছে। তার জন্য জাহান্নামের বিছানা বিছিয়ে দাও। তাকে জাহান্নামের পোশাক পরাও। তার জন্য জাহান্নামের দরজা উন্মুক্ত করো। অতঃপর তার কাছে জাহান্নামের উত্তপ্ত লু হাওয়া আসতে থাকবে এবং তার কবরকে এতই সংকীর্ণ করা হবে যে তার এক দিকের হাড় অন্য দিকের হাড়ে প্রবেশ করবে। অতঃপর একজন অন্ধ ও বধির ফেরেশতা নিযুক্ত করা হবে, যার কাছে একটি লোহার হাতুড়ি রয়েছে। তা দিয়ে পাহাড়ে আঘাত করা হলে তা গুঁড়া হয়ে পড়বে। অতঃপর সেই ফেরেশতা লোহার হাতুড়ি দিয়ে তাকে এমন আঘাত করবে, যার আওয়াজ জিন ও মানুষ ছাড়া পূর্ব ও পশ্চিমের সবাই শুনতে পাবে। ফলে সেই ব্যক্তি মাটির সঙ্গে মিশে যাবে। এরপর তার মধ্যে পুনরায় রুহ ফিরিয়ে দেওয়া হবে। (আবু দাউদ, হাদিস : ৪৭৫৩)

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করতে ক্লিক করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

themesbazartvsite-01713478536